আজ - শনিবার, ২১ এপ্রিল, ২০১৮ ইং | ৮ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ: 

বর্তমান সরকারের জনপ্রিয়তা এখন শূন্যের কোঠায় : এরশাদ

রংপুর প্রতিনিধি: প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন,  বর্তমান সরকারের জনপ্রিয়তা এখন শূন্যের কোঠা নেমে এসেছে। জতীয় পার্টি এখন সোনার মত মূল্যবান। জাতীয় পার্টিকে আগামীতে ক্ষমতায় দেখতে চায় এদেশের মানুষ। মানুষ পরিবর্তন চায়। মানুষ এই দুই দলের কাজ থেকে মুত্তি চায়। গতকাল রোববার দুপুরে রংপুর পাবলিক লাইব্রেরীর মাঠে রংপুর জেলা জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সন্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তেব্যে এসবকথা বলেন।
এরশাদ বলেন, আগামী নির্বচনে রংপুরের ২২টি আসন আমাকে উপহার দেন আমি ক্ষমতায় যাব। এদেশের মানুষ পরিবর্তনের জন্য প্রস্তুত। কারন তারা এই দুই দলের কাছে মুক্তি চায় পরিবর্তনও চায়। রংপুর ছিল জাতীয় পার্টির দূর্গ। এই দূর্গ মেরামত করতে হবে। বিএনপির ক্ষমতায় থাকার সময় তাদের অনেক অত্যাচার সহ্য করেছি। সামনে নির্বাচন আমাদের বাঁচা মরার নির্বাচন।
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, শেখ হাসিনার কথা ছাড়া কিছুই হয়না।  আমাদের আর অবহেলা করবেন না। ৭-৮ বছর ধরে ক্ষমতার বাহিরে আছি। চারিদিকে লুটপাট, শেয়ার বাজারে লুটপাট। গত দুই মাসে দেশে ৩ শত ৮৭টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। তিনি ক্ষোভের সাথে বলেন, আমরা সকলেই ধর্ষিতা। বাল্য বিবাহে আমরা বিশ্বে এক নম্বর দেশ। ঢাকা বসবাসে অযোগ্য শহর। যতই মেট্রো রেল আর ফ্লাই ওভার করেন কোন লাভ হবেনা। আমরা বলেছি রাজধানী বাহিরে করেন।
এরশাদ বলেন, দেশে চাকুরী নাই শিল্প প্রতিষ্টান নেই। এখন সব জায়গায় ইয়াবা পাওয়া যায়। আমাদের সময় তা ছিলনা। হতাশায় যুবসমাজ মাদক নেয়।এখন ৫০-৬০ টাকা দরে গরীব মানুষকে চাল কিনতে হয়। ট্রেনিং না থাকার কারনে এদেশের শ্রমিকরা বিদেশে গিয়ে অর্ধেক বেতন পায়।
বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার উদ্দ্রেশ্য এরশাদ বলেন, আমি বিচার ব্যবস্থা সহজ করার জন্য দেশের প্রতিটি উপজেলায় আদালত প্রতিষ্টা করেছিলাম। কিন্ত খালেদা জিয়া ক্ষমতায় দিয়ে সেটা তুলে নিয়ে এদেশের বিচাপ্রার্থীদের হতাশ করেছেন।
জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান বলেন, আমি যমুনা সেতুর ভিত্তি দিয়েছিলাম। উদ্ধেদনের দিন আমাকে ডাকা হয়নি। আমরা প্রাদেশিক ব্যবস্থা চাই। সীল মাড়ার নির্বাচন চাইনা। সুষ্ট নির্বাচন চাই। এক জনের শাসন চাইনা। বেকার মুক্ত দেশ চাই। আমরা মফিজ হয়ে বাঁচতে চাইনা। মানুষের আশা এবার আমাদেরকে নিয়ে। আমরা নির্বাচনের মাধ্যমে মানুষের সেই আশা বাস্তবায়ন করতে চাই।
স্থানীয় সরকার ও পল্লী উন্নয়ন সমবায় প্রতিমন্ত্রী মশিউর রহমান রাঙ্গার সভাপতিত্বে সন্মেলনে বক্তব্য রাখেন দলের কো-চেয়ারম্যান জিএম কাদের মহাসচিব রুহুল আমিন হাওলাদার, রংপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা,  এমপি শাহানা বেগম রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক এসএম ইয়াসিরসহ জেলার ৮ উপজেলার জাতীয় পার্টিও নেতৃবৃন্দ।


প্রকাশ: ১৫ এপ্রিল ২০১৮, ১০:০৪:৪২ অপরাহ্ন



 
Advertise