আজ - শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮ ইং | ১২ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ: 

কক্সবাজারের উখিয়ায় ৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো চাষাবাদ অনিশ্চিত

কক্সবাজারের উখিয়ায় পল্লী বিদ্যুতের ভয়াবহ লোডশেডিং এর কারণে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। উখিয়া জোনাল অফিসের ১৩ হাজার গ্রাহকের বিপরীতে মাত্র আধা মেগাওয়ার্ট বিদ্যুৎ সরবরাহ দিচ্ছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। সেচের অভাবে জমির পরিচর্যা করে চাষাবাদ উপযোগী করে তুলতে না পারায় হতাশ হয়ে পড়েছেন বলে কৃষকদের অভিমত। উপজেলা কৃষি সমপ্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, উপজেলার ১১ হাজার হেক্টর কৃষি উপযোগী জমির মধ্যে প্রায় ৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ১ হাজার হেক্টর জমিতে শাকসবজি চাষাবাদ হয়ে থাকলেও পানি শূন্যতার কারণে আরো ৪ হাজার হেক্টর জমি প্রতি বছর অনাবাদি থেকে যায়। স্থানীয় কৃষকেরা চাষাবাদের পানি নিষ্কাশন নিশ্চিত করার লক্ষ্যে প্রায় ১৬’শ অগভীর নলকূপের জন্য পল্লী বিদ্যুতের নির্ধারিত ফি জমা দিয়ে সেচ সংযোগের আবেদন করেন। আবেদনে সারা থাকলেও বিদ্যুতের নাজুক অবস্থা। যে কারণে বীজতলা থেকে চারা উত্তোলন ও জমিতে চারা রোপন করা সম্ভব হচ্ছে না বলে কৃষকেরা জানান। রাজাপালং ইউনিয়নের সাবেক ইউপি সদস্য ও কৃষক রুহুল আমিন অভিযোগ করে জানান, বিদ্যুৎ সরবরাহ পর্যাপ্ত না হওয়ায় সেচের মারাত্মক ক্ষতি হচ্ছে। হরিণ মারা গ্রামের কৃষক ছিদ্দিক আহমদ জানান, পানির অভাবে বীজতলা শুকিয়ে যাওয়ার কারণে চারা উত্তোলন করা যাচ্ছে না। এভাবে আরো কয়েক সপ্তাহ বিদ্যুতের লোডশেডিং অব্যাহত থাকলে বীজ তলায় উৎপাদিত চারা মরে যাবে। ফলে বোরো চাষাবাদ অনিশ্চিত হয়ে পড়বে। উপজেলার বিভিন্নস্থানে, জমিতে পানি না থাকায় ট্যাক্টর বা লাঙল মই দিতে না পারায় মহিলারা জমি কুড়ে বোরো চাষাবাদের চেষ্টা চালাচ্ছে। এ প্রসঙ্গে পল্লী বিদ্যুতের ডিজিএম প্রকৌশলী সাদেকুর রহমান জানান, বোরো মৌসুমের জন্য ৮ মেগাওয়ার্ট বিদ্যুতের চাহিদার স্থলে দেড় মেগাওয়ার্ট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রীড থেকে সরবরাহ দেওয়া হচ্ছে। উক্ত বিদ্যুৎ থেকে এক মেগাওয়ার্ট বিদ্যুৎ সোনার পাড়া এলাকায় চিংড়ী পোনা উৎপাদনশীল ৩৭টি হ্যাচারী শিল্পে সরবরাহ দেওয়া হচ্ছে। বাকী আধা মেগাওয়ার্ট বিদ্যুৎ নিয়মিত ১৩ হাজার গ্রাহকদের লোডশেডিংয়ের মাধ্যমে সরবরাহ দেওয়া হচ্ছে। তিনি জানান, আগামী এপ্রিল মাসে বিদ্যুতের কিছুটা উন্নতি হতে পারে। উপজেলা কৃষি অফিসার ইউসুফ ভুইয়া জানান, বোরো চাষাবাদ উপযোগী অধিকাংশ জমি সেচ পাম্পের উপর নির্ভরশীল। কৃষকেরা সময় মতো বিদ্যুৎ না পেলে সার্বিক ভাবে তাঁরা হয়রানির স্বীকার হবে। এতে বোরো উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন না ও হতে পারে।

প্রকাশ: ১৩ মে ২০১৩, ৯:১৭:৩৩ অপরাহ্ন | সর্বশেষ সম্পাদনা: ১৪ মে ২০১৩, ৩:২৪:২৭ অপরাহ্ন



 
Advertise