আজ - শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং | ৭ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ: 

নীলফামারীতে জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মেলন ঘিরে ক্ষুদে শিল্পীদের দেয়াল চিত্রাঙ্কন অনুষ্ঠিত

নীলফামারী প্রতিনিধি : জেলা শহরে অনুষ্ঠিত হবে জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মেলন। আগামী ৯ মার্চ থেকে ১১ মার্চ তিন দিনের ওই সম্মেলন ঘিরে জেলা শহরকে সাজাতে দেয়াল চিত্রাঙ্কনের কাজ শুরু হয়েছে। সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের পৃষ্ঠপোশকতায় শহর সাজানোর কাজের উদ্যোগটি গ্রহণ করেছে স্থানীয় সংগঠন ভিশন ২১। শহর রাঙানোর কাজটি শুরু হয়েছিল গত শুক্রবার থেকে। গতকাল শনিবার সকালেও শহরের ৮৮ জন ক্ষুদে শিল্পীকে রঙতুলি হাতে দেখা গেছে দেওয়াল চিত্রাঙ্কনের কাজে। শহরের শহীদ মিনার এলাকা, সরকারী মহিলা কলেজ, ছমির উদ্দিন স্কুল এ- কলেজ, রাবেয়া বালিকা বিদ্যা নিকেতন, কালেক্টরেট পাবলিক স্কুল এ- কলেজ চত্বরের দেওয়ালে তাদেরকে দেখা গেছে আবহমান গ্রাম বাংলার দৃশ্য, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বিশ্ব কবি রবীন্দ্র নাথ ঠাকুর, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের প্রতিকৃতিসহ বিভিন্ন স্থাপনার ছবি আকতে। ওই ছবি অঙ্কনের কাজে ক্ষুদে শিল্পীদের নির্দেশনা প্রদান করছেন ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের শিক্ষক হারুন অর রশীদের নেতৃত্বে ওই বিভাগের বিভিন্ন বর্ষের ১৫ জন শিক্ষার্থী।
ভিশন ২১ এর প্রধান সমন্বয়কারী ওয়াদুদ রহমান জানান, আগামী ৯ থেকে ১১ মার্চ তিন দিন জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে নীলফামারীতে। ওই সম্মেলন ঘিরে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরের পৃষ্ঠপোশকতায় শহরের সৌন্দর্য বৃদ্ধিতে কাজ চলছে। তিনি বলেন,‘আমরা শহরের শিশুদের মধ্যে একটি চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার মাধ্যমে ৮৮ জন ক্ষুদে শিল্পীকে বাছাই করি। এখন ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের একজন শিক্ষকসহ ১৬ জনের প্রতিনিধি দলের সঙ্গে হাতে কলমে দেওয়াল চিত্রাঙ্কের সুযোগ করে দেওয়া হয়েছে তাদেরকে। আজ রোববার পর্যন্ত ক্ষুদে শিল্পীরা তাদের সঙ্গে হাতে কলমে কাজ করার সুযোগ পাবে। দক্ষ শিল্পীদের সঙ্গে কাজ করে তাদের প্রতিভার বিকাশ ঘটবে। পড়ার পাশাপাশি চিত্রাঙ্কনের মধ্য দিয়ে শিক্ষার প্রসার ঘটবে।’ছবি আকতে এসে আনন্দিত ক্ষুদে শিল্পীরা। তাদের মধ্যে অদিতি রায় উর্মি বলেন,‘দেওয়ালে ছবি একে খুব আনন্দ পাচ্ছি। অনেক বড় মানুষদের সঙ্গে ছবি আকার কাজ করতে পেরে আমরা নিজেকে ধন্য মনে করছি।’হাতে তুলি নিয়ে দেওয়াল চিত্রাঙ্কনের কাজ করতে দেখা দেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের মাস্টার্স শেষ বর্ষের শিক্ষার্থী নিশাত সুবাহকে। তিনি বলেন,‘চারুকলা বিভাগের একজন স্যারের নেতৃত্বে ১৬ জনের একটি দল অংশ নিয়েছি এ কাজে। শহরের ক্ষুদে শিল্পীদের ছবি আকার দিক নির্দেশনাসহ আমরা নিজেরাও ছবি আকছি।’


প্রকাশ: ৪ মার্চ ২০১৮, ৭:০৩:৪০ পুর্বাহ্ন



 
Advertise