আজ - সোমবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৮ ইং | ১০ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
সর্বশেষ: 

এক পশলা বৃষ্টি ! বর্ষার রং নাকি নীল?

ফারজানা ইসলাম বিন্দু : আকাশে আজ মেঘের আনাগোনা। মেঘবালিকার খেয়ালখুশিতে কখনো বা নেমে পড়ছে এক পশলা বৃষ্টিও। ওই বৃষ্টিতে ভিজে মাধবীলতা নুয়ে পড়েছে লজ্জায়। বাদল দিনে মাধবীলতা, বেলি আর কদম ফুলে যখন সেজে উঠেছে প্রকৃতি, তখন আপনিও তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে নিজেকে একটু রাঙিয়ে নিতে পারেন স্নিগ্ধ প্রকৃতির সাজে। বর্ষার রং নাকি নীল। ‘বর্ষার সময় প্রকৃতিতে একটু ভেজা ও স্যাঁতসেঁতে ভাব থাকে। তা ছাড়া যেকোনো মুহূর্তে নেমে পড়া বৃষ্টিতে ভিজে একাকার হয়ে যাওয়ারও থাকে আশঙ্কা। তাই এ সময়ের সাজের উপকরণটি হতে হবে অবশ্যই পানিরোধক।বর্ষাসাজ উপকরণ: সাজের উপকরণ ব্যবহারের আগে মুখটা আপনার ত্বকের ধরন অনুযায়ী ফেশওয়াস দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর একটু ভারী ময়েশ্চারাইজার লাগান। বেইজ হিসেবে তরল ফাউন্ডেশনটা বাদ দিয়ে ব্যবহার করতে পারেন স্টিক ফাউন্ডেশন। এটি যেন অবশ্যই পানিরোধক হয়। অথবা ক্রিম টু পাউডার ফাউন্ডেশন ব্যবহার করুন। তবে দিনের বেলায় পাউডার হিসেবে হলেও রাতে একটু ভিজিয়ে ব্যবহার করলে বেশি ভালো দেখাবে। প্রেসড পাউডারও ত্বকে সজীব ভাব ফুটিয়ে তোলে। আর ফাউন্ডেশনটাকে দীর্ঘসময় ভালো রাখতে এর ওপর লুজ পাউডারও লাগিয়ে নিতে পারেন। চোখের নিচের জন্য স্টিক বা পেনসিল কনসিলার বেছে নিন। চোখের সাজে এর উপকরণের দিকেও নজর দিন। কাজল এ সময় বাদ দেওয়াই ভালো। এর বদলে পানিরোধক আই পেনসিল বেছে নিন। আইশ্যাডোর পরিবর্তে রঙিন আই পেনসিল ব্যবহার করতে পারেন। লাইনার ব্যবহার করতে চাইলে পানিরোধক লাইনার বেছে নিন। রাতের সাজে ক্রিম ব্লাসন, ম্যাট পাউডার ও আইশ্যাডো ব্যবহার করতে পারেন। লিপস্টিক হিসেবে দিনে ম্যাট লিপস্টিক ও রাতে লিপগ্লস বেছে নিন। পুরো সাজের পর ব্রোনজিং পাউডার আলতোভাবে লাগাতে পারেন। দিনের বেলা ব্লাশ-অন এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করুন। দিনের সাজে চোখের নিচের পাতায় আইলাইনার অথবা মাশকারা না লাগানোই ভালো। তবে যদি ব্যবহার করতে চান, খুব সাবধানে পাউডার ব্লাশ-অন ব্যবহার করুন। ব্লাশ-অনে ন্যাচারাল লুক আনতে হাতের সাহায্য নিন। রাতের বেলা দুই গালে খুব হালকা করে গোলাপি, পিচ অথবা ব্রোঞ্জ রঙের ব্লাশার লাগিয়ে নিতে পারেন। ম্যাট অথবা পাউডার ধরনের লিপস্টিক লাগাবেন; ময়েশ্চারসমৃদ্ধ পিংক, কোরাল, ব্রোঞ্জ অথবা বিভিন্ন ফলের রং বেছে নিতে পারেন। লিপ ব্রাশ ব্যবহার না করে আঙুল দিয়ে ভালোভাবে ব্লেন্ড করে দিন। এতে ঠোঁটে এক ধরনের ন্যাচারাল শেড আসবে। তবে লিপস্টিক লাগানোর আগে ল করুন, তা যেন আপনার স্কিন টোনের সঙ্গে মানিয়ে যায়। মেঘে ঢাকা আকাশের মুখ গোমরা বলে কি আপনার সাজেও তা প্রকাশ পাবে? মোটেই না। এখন সাজসজ্জার জন্য নীল, সবুজ, ফিরোজা, কমলা, গোলাপি রঙের ব্যবহার করতে পারেন। আপনার সাজে এ রংগুলো যোগ করে নিতে পারেন। পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে রংগুলো এঁকে নিন ঠোঁটে, চোখে। তবে প্রকৃতির সঙ্গে মিলে যেতে আপনার নীলচে সাজটা বেশি কাজে দেবে। বেশি ভারী মেকআপ এই আবহাওয়ায় না নেওয়াই ভালো। এই হলো বর্ষা সাজসজ্জার উপকরণের গল্প। বর্ষাসাজ পরিপাটি: সাজের শুরুতেই মুখ খুব ভালোভাবে ধুয়ে নিন। মেকআপের আগে মুখে কিছুণ বরফ ঘষে নিয়ে টোনিং করে অয়েল ফ্রি সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন। এরপর ময়েশ্চারাইজার দিয়ে খুব ভালোভাবে ত্বকটা মালিশ করে নিন। তিন মিনিট অপো করুন। এরপর করতে পারেন হালকা বেইজ মেকআপ। পুরো মুখে স্টিক ফাউন্ডেশনটি লাগিয়ে ভালোভাবে মিশিয়ে নিন। ব্লাসনটা ব্যবহার করুন হাতের আঙুল দিয়ে। অফিস, বিশ্ববিদ্যালয় যেখানেই যান না কেন, সাজে নীলের ছোঁয়াটা কিন্তু বেশ ভালো লাগবে। তবে অবশ্যই এটি যেন ভালোভাবে মিশে থাকে, তা খেয়াল রাখুন। চোখে পোশাকের সঙ্গে মিলিয়ে শ্যাডো লাগিয়ে নিন আলতো করে। আকাশি, নীল ফিরোজার সঙ্গে বেগুনী, গোলাপী, সোনালি রঙটাও মিশিয়ে নিতে পারেন চোখ সাজাতে। আঙুলের ডগায় নিয়ে হালকা করে লাগিয়ে নিন চোখের পাতায়। অথবা রঙিন পেনসিল দিয়েও টেনে নিতে পারেন চোখের আয়নায়। ওপরের পাতায় রঙিন পেনসিলের টানাটি আঙুলের ডগা দিয়ে আইশ্যাডোর সঙ্গে মিশিয়ে নিয়ে আনতে পারেন স্মোকি লুক। বেশ আকর্ষণীয় করে চোখ ফুটিয়ে তুলতে উজ্জ্বল আইশ্যাডোর সঙ্গে কালো কাজল মিশিয়ে নিতে পারেন। ব্যবহার করতে পারেন গাঢ় নীল মাসকারাও। নীলচে সাজের সঙ্গে ঠোঁট সাজাতেও ব্যবহার করতে পারেন উজ্জ্বল রঙের লিপস্টিক। গোলাপী, বেগুনি, বাদামি লিপস্টিকটা দিনে-রাতে দু সময়ই ব্যবহার করতে পারেন। তবে রাতে ম্যাট লিপস্টিকের ওপর লাগিয়ে নিতে পারেন গ্লসও। তা ছাড়া নাকের দুই পাশে গাঢ় ব্লাসন লাগিয়ে নিতে পারেন ইচ্ছেমতো। দিনের বেলায় ফাউন্ডেশন না লাগিয়ে হালকা কোনো ফেস পাউডার লাগিয়ে দেখতে পারেন। এতে ত্বক অনেক বেশি মসৃণ ও সুন্দর দেখাবে। আবার যদি আপনি ফাউন্ডেশন ব্যবহার করতেই চান, ম্যাটিফায়িং ফাউন্ডেশন লাগান। এতে ত্বক কম ঘামবে এবং কম তৈলাক্ত হবে। এর ওপরে প্রয়োজনে পাউডার ব্যবহার করতে পারেন। সাজের মধ্যে আরও বেশি সজীবতা যোগ করতে শাইনিং পাউডারটা আলতো করে ছুঁইয়ে নিতে পারেন। তাতে আপনার নীল রঙের সাজটা আরও বেশি স্নিগ্ধ হয়ে উঠবে। এবার পোশাকের সঙ্গে মেকআপে মিল রেখে লাইট-ব্রাউন কালারের আইশ্যাডো লাগিয়ে নিলে অনেক বেশি ন্যাচারাল দেখাবে। তবে রাতের বেলায় একটু গাঢ় করেই চোখটা সাজাতে পারেন। সাজের সঙ্গে পোশাকটাও বেছে নিতে পারেন আকাশের মতো নীল বা ঘাসের মতো সবুজ অথবা প্রজাপতির পাখার মতো রঙিন কোনো রঙের। এই সময়ের সবচেয়ে উপযোগী পোশাক জর্জেট, শিফন, ক্রেপের শাড়ি বা সালোয়ার-কামিজ। মেকআপের পালা শেষ করে বেঁধে নিন চুলগুলো। সামনের দিকের চুলগুলো আটকিয়ে নিন কিপ দিয়ে। সামনের দিকে পনিটেইল করে পেছনে একটা খোঁপা বা বেণিও করে নিতে পারেন। নীল পাথরের দুলটা এবার ঝুলিয়ে দিন কানের লতায়, আংটিটা অনামিকায় আর নীল টিপটা থাক কপালে। সাজটা শেষ করে এবার নিশ্চয়ই বাইরে বেরিয়ে যওয়ার পালা? তবে বাদল দিনে নীল সাজের সঙ্গে খোঁপায় একটা ফুল ছাড়া কি মানায়! এবার আপনার সাজ একেবারে পূর্ণ।

প্রকাশ: ৯ মে ২০১৩, ৭:৪৫:২৮ অপরাহ্ন | সর্বশেষ সম্পাদনা: ৯ মে ২০১৩, ৭:৫৪:৪৬ অপরাহ্ন



 
Advertise